What’s Mim up to?

Bidya Sinha Mim has been tremendously impressive on the silver screen in recent times. Now, she will be seen in a brand new television commercial and several exciting films. The commercial has been shot in Gazipur and Dhaka. Mim says she had fun working on the commercial as it was very story-based.

ব্লু হোয়েল গেমের চ্যালেঞ্জিং ধাপে জিতলেই সাজ্জাদকে বিয়ে করবেন নাদিয়া!













বিয়ে করার জন্য একটি ব্লু হোয়েল গেমের মতো চ্যালেঞ্জিং ধাপ দেন নাদিয়া। সেখানে জিতলে নাদিয়া বিয়ে করবেন ইরফান সাজ্জাদকে ! ইরফান সাজ্জাদ খুব শান্ত ও বিনয়ী ছেলে।টাইটেলটি পরে চমকে গেলেন? না বাস্তবে নয় এমনি এক ঘটনা ঘটেছে ‘গেমারু’ নামের এক নাটকে !

বাবা-মায়ের একমাত্র ছেলে হওয়ায় তাদের কথা মতো পাত্রী দেখতে যান।নাদিয়াকে দেখতে গিয়ে পছন্দও করেন।বিয়ের কথা পাকাপাকি হওয়ার আগে নাদিয়ার ইচ্ছে মতো নিজেকে সাহসী হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করেন ইরফান।প্রথম ধাপেই পরিবারের বাহিরে গিয়ে পালিয়ে বিয়ে করতে হবে।

ইরফান সাজ্জাদ রাজি হন। তারা অচেনা জায়গার উদ্দেশ্যে রওনা হন।গেমের প্রতিটি ধাপে ইরফানকে নানান ঝামেলায় ফেলতে থাকেন নাদিয়া। যেমন, নীচে ঘুমানো, তার প্রসাধনীর জিনিসপত্র নিয়ে পেছনে পেছনে ঘোরা, হাত দিয়ে মুখে তুলে খাবার খাওয়ানো,

রোদে ছাতা নিয়ে পেছনে থাকা ছাড়াও নানান সব ঘটনার জন্য বেচারা ইরফান তিক্ত বিরক্ত হয়ে যান!কিন্তু তিনি জিততেই চান। তার জীবনে কোন হার নেই। এক পর্যায়ে ঘটে লোম হর্ষক ঘটনা। শেষ পর্যন্ত ইরফান সাজ্জাদ জয়ী, না হেরে যান, সেটা জানতে হলে দেখতে হবে নাটক ‘গেমারু’।

কবি ও নাট্যকার মিজানুর রহমান বেলাল বেশ কিছু নতুন ধারার নাটক উপহার দিয়ে দর্শকদের কাছে পরিচিতি পেয়েছেন। গেমারু নাটকটিও এমন অভিনব একটি একটি কনসেপ্ট। আর এই নাটকটি নির্মাণ করছেন তরুণ নির্মাতা সাহেল সুমন।

এই নাটকে আরো অভিনয় করেছেন শবনম পারভীন, খলিলুর রহমান কাদেরি, খায়ের আলম টিপু, শেখ স্বপ্না প্রমূখ। ‘গেমারু’ প্রযোজনা করেছেন কামাল উদ্দিন। নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে। ঈদে একটি বেসরকারি চ্যানেলে প্রচার হবে ‘গেমারু’।




বলিউড নায়িকার স্বামীরা কত টাকার মালিক?













বলিউডে তাদের কেউ ক্যারিয়ারে চূড়ান্তভাবে সফল, আবার কেউ পাত্তাই পাননি। তবে, জীবনসঙ্গী নির্বাচনের ব্যাপারে এই অভিনেত্রীরা এগিয়ে গিয়েছেন বেশ কয়েক ধাপ। কারো পছন্দ ধনকুবের ব্যবসায়ী, আবার কেউ বিয়ে করেছেন জনপ্রিয় খেলোয়াড়কে।

আনন্দবাজার পত্রিকা অবলম্বনে জেনে নিন কয়েকজন নায়িকার স্বামীদের সম্পত্তির পরিমাণ।

গায়ত্রী জোশি : টিভি থেকে বড়পর্দায় বেশ সফলভাবেই ক্যারিয়ার শুরু করেন ‘স্বদেশ’-খ্যাত গায়ত্রী। বি-টাউনে জনপ্রিয়তা পেলেও ক্যারিয়ারে ইতি টেনে ব্যবসায়ী বিকাশ ওবেরয়কে বিয়ে করেন। ওবেরয় কনস্ট্রাকশনের মালিক বিকাশের সম্পত্তির অঙ্ক শুনলে চোখ কপালে উঠবে। প্রায় ১৪ হাজার ৭০০ কোটি রুপি।

রানি মুখার্জি : জনপ্রিয় চিত্রনির্মাতা ও প্রযোজক আদিত্য চোপড়ার ঘরণী রানি। দুজনেই ক্যারিয়ারে চূড়ান্তভাবে সফল। রানিকে বাদ দিলে আদিত্যের একারই মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৬ হাজার ৪৮১ কোটি রুপি।

বিদ্যা বালান : বিদ্যার অভিনয় দক্ষতার কথা আলাদা করে বলার কিছু নেই। বলিউডের অন্যতম সফল অভিনেত্রী বিদ্যা বিয়ে করেছেন টিভি ও বড়পর্দার জনপ্রিয় প্রযোজক সিদ্ধার্থ রায় কাপুরকে। প্রযোজনার পাশাপাশি ওয়াল্ট ডিজনির ম্যানেজিং ডিরেক্টরের পদেও রয়েছেন সিদ্ধার্থ। তার সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৩ হাজার ১০০ কোটি রুপি।

শিল্পা শেঠি : বি-টাউনে সফল অভিনেত্রীর মধ্যে অবশ্যই রয়েছেন শিল্পা। বিয়েও করেছেন ধনকুবের ব্যবসায়ী রাজ কুন্দ্রাকে। রাজস্থানের রয়্যালসের মালিক রাজ কুন্দ্রার মোট সম্পত্তির পরিমাণ ২ হাজার ৬০০ কোটি রুপি।

জুহি চাওলা : অভিনয় হোক বা জনপ্রিয়তা, বলিউডে প্রথম সারির নায়িকাদের মধ্যে অবশ্যই রয়েছেন জুহি চাওলা। নিজের ক্যারিয়ারে সফল জুহি বিয়েও করেছেন একজন বিজনেস টাইকুনকে। জুহির স্বামী জয় মেহতা হলেন মেহতা গ্রুপের কর্ণধার। জয়ের সম্পত্তির পরিমাণ ২ হাজার ৩০০ কোটি রুপি।

সেলিনা জেটলি : মডেলিংয়ের দুনিয়ায় নাম কিনলেও বি-টাউনে তেমনভাবে সফল নন সেলিনা। বেশিরভাগ সময় পার্শ্বচরিত্রেই অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাকে। সেলিনা বিয়ে করেছেন অস্ট্রিয়ার ব্যবসায়ী পিটার হাগকে। পিটারের সম্পত্তির পরিমাণ জানা না গেলেও বিলিওনেয়ার ব্যবসায়ীদের তালিকায় বারে বারেই উঠে এসেছে পিটারের নাম।

আসিন : ক্যারিয়ারের মধ্যগগনে নামজাদা ব্যবসায়ী রাহুল শর্মাকে বিয়ে করেন আসিন। মাইক্রম্যাক্সের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও রাহুলের মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৬৬৮ কোটি রুপি। রাহুলের গাড়ির কালেকশনও ঈর্ষণীয়।

আনুশকা শর্মা : বি-টাউনের অন্যতম হিট জুটি ‘বিরুষ্কা’। আনুশকার জনপ্রিয়তা যেমন অভিনয় জগতে তুঙ্গে, তেমনি ক্রিকেটের দুনিয়ায় বাজিমাত করেছেন বিরাট। নিজেদের ক্যারিয়ারে দুজনেই সফল। বিরাটের মোট আয়ের পরিমাণ প্রায় ৩৮২ কোটি রুপি। তবে, পিছিয়ে নেই আনুশকাও। দুজনের মোট সম্পত্তির পরিমাণ হাজার কোটি রুপির কাছাকাছি।

আয়েশা টাকিয়া : ক্যারিয়ারের মাঝপথেই নামজাদা হোটেল ব্যবসায়ী ফারহান আজমিকে বিয়ে করেন আয়েশা। রাজনৈতিক নেতা আবু আজমির ছেলে ফারহানের মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৬৬ কোটি রুপি।

অমৃতা অরোরা : বি-টাউনে সেভাবে দাগ কাটতে পারেননি অমৃতা। তাই অভিনয় ছেড়ে বিয়ে করারই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন। অমৃতার স্বামী শিকাল লাদাক মুম্বাইয়ের এক নামজাদা ব্যবসায়ী। কনস্ট্রাকশন কোম্পানি রেডস্টোন গ্রুপের ডিরেক্টর রাহুল।




নারীর যে জিনিসে পুরুষের আগ্রহ বেশি!













প্রকৃতগতভাবেই নারী-পুরুষের মাঝে আকর্ষণ থাকাটা স্বাভাবিক। একজন নারীর শুধু সৌন্দর্যই পুরুষকে আকর্ষণ করে না। সৌন্দের্যের পাশাপাশি আরো বেশ কিছু বিষয় নারীদের প্রতি পুরুষদের আগ্রহী করে তোলে।

১. হাসি: নারীদের হাসি খুবই স্বাভাবিক একটা বিষয় যা পুরুষের মন জয় করার জন্য যথেষ্ট। নারীরা খুব রহস্যজনকভাবে হাসতে পারে। আর সেটি একজন পুরুষকে করে তুলতে পারে অধীর। নারীর সেই রহস্যময়ী হাসিটি দেখতেই তার ভালো লাগে। আর মুগ্ধ সেই পুরুষটির তখন প্রথম কথাই থাকে “তোমার হাসি অনেক সুন্দর”।

২. সৌন্দর্য: এটা অবশ্যই স্বীকার করতেই হবে যে প্রত্যেক নারীই আপন স্বীয় সৌন্দর্যে মোহনীয়। অনেক কালো একটা মেয়ের মধ্যেও নিজস্ব কোনো মোহনীয় সৌন্দর্য লুকিয়ে থাকতে পারে। আর সেই মোহনীয় সৌন্দর্যই যেকোনো পুরুষকে করে তুলতে পারে মনমুগ্ধ। বাড়িয়ে দিতে পারে তার প্রতি আকর্ষণ।

৩. বাচন ভঙ্গি:একজন নারী খুব সুন্দরভাবে একটি কাজ করতে পারেন আর তা হলো গুছিয়ে কথা বলা রপ্ত করে ফেলা। আর তার সেই কথা বলার ভঙ্গিই মুগ্ধ করে ফেলেতে পারে একজন পুরুষকে। নারীরা বেশিরভাগ সময়েই বেশ গুছিয়ে কথা বলেন। এর ফলে নারীদের কথা পুরুষদের কাছে মনে হয় যেন মধুমাখা। ফলে আকর্ষণবোধ করতে পারে।

৪. চুলের ধরণ: একটি নারীর সকল সৌন্দর্যই যেন লেগে থাকে তার চুলের বাঁধনে। নারীটি চুল বেঁধে রাখুক বা খুলে রাখুক হালকা বাতাসে চুলের দোদুল্যমানতা দেখতে প্রত্যেক পুরুষেরই বেশ ভালো লাগে। না রীর ঝলমলে চুল সব পুরুষের পছন্দ।

৫. সরলতা: নারী শব্দটির সাথে সরলতা শব্দটি যেন ওতপ্রোতভাবে জড়িত। নারী মানেই যেন সরল হবে। আর এই সরলতাই প্রত্যেক পুরুষের তার প্রতি আকর্ষণ বাড়িয়ে দেয়। একজন নারী যদি কুটিল ও হিংস্র প্রকৃতির হয় তাহলে তার প্রতি কোনো পুরুষেরই আকর্ষণবোধ হবে না। পুরুষরা এমন নারীর প্রতি আকর্ষণবোধ করে যে হবে সরল এবং মায়াবতী।

৬. ছেলেমানুষি ভাব: অনেকের নারীর মাঝেই ছেলেমানুষি ভাব থাকে। এই ছেলেমানুষি ভাবই আকর্ষিত করে তোলে একজন পুরুষকে।

৭. চোখের ভঙ্গি: আরেকটি বিষয়ে একজন পুরুষ একজন নারীর প্রতি আকর্ষণবোধ করতে পারেন। সেটি হল তার চোখের ভঙ্গি বা চোখের ভাষা। একজন নারীর চোখে অনেক ভাষা থাকে। আর পুরুষরা সেই ভাষা পড়তে খুব ভালোবাসেন। এভাবেও একজন পুরুষ একজন নারীর প্রতি আকর্ষিত হতে পারেন।




শ্রদ্ধার বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন বাবা শক্তি কাপুর!













বিয়ের হাওয়া বইছে দেশ জুড়ে। বিরাট-অনুষ্কা থেকে শুরু করে সোনম-আনন্দ বা বাংলার রাজ-শুভশ্রী— একের পরে এক যুগল সাতপাকে বাঁধা পড়ছে। এরই মধ্যে বাগদান পর্ব সেরে ফেলেছেন অম্বানীর তিন ছেলেমেয়ে। এবার বি-টাউনে জল্পনা শুরু শ্রদ্ধা কপূরের বিয়ে নিয়ে।

সম্প্রতি খোদ শক্তি কপূর মেয়ের বিয়ে নিয়ে মুখ খুলেছেন। মেয়ের কাজ নিয়ে তিনি কতটা খুশি, তা প্রথমে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের কাছে জানান শক্তি কপূর। এর পর মেয়ের বিয়ে নিয়ে তিনি জানান, প্রত্যেক বাবাই চান কোনও সম্ভ্রান্ত পরিবারে তাঁর মেয়ের বিয়ে হোক। কিন্তু আজকের দিনে, ছেলেমেয়েরা যাতে নিজের পছন্দ মতো সঙ্গী বেছে নিতে পারে, মা-বাবার সেটা দেখা উচিত।

মেয়ের জন্য কেমন পাত্র চান, এই ব্যাপারে শক্তি কপূর জানান, ছেলেমেয়েরা মা-বাবার নির্বাচন করা সঙ্গীকে বিয়ে করবে, সেই দিন আর নেই। এখন মা-বাবার উচিত প্রথমেই ছেলেমেয়েদের পছন্দটা জেনে নেওয়া।

এই মুহূর্তে শ্রদ্ধা কেরিয়ার নিয়ে ব্যস্ত। কিন্তু শ্রদ্ধা একবার নিজের পছন্দের মানুষকে বিয়ে করার ইচ্ছে প্রকাশ করলেই বাবা হিসেবে তিনি পাশে থাকবেন। টিনসেল টাউনে যতই শ্রদ্ধা কপূরের বিয়ে নিয়ে জল্পনা হোক, তিনি নিজে কখনওই জানাননি তাঁর মনে কে রয়েছেন।