ঈদে এই তারকাদের সর্বোচ্চ সেলামি কত, জানলে অবাক হবেন!













ঈদ মানে বড়দের কাছ থেকে সেলামি পাওয়া। ছোটবেলায় ঈদ সেলামি পায়নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। সারাবছর অপেক্ষা থাকে বিশেষ এই দিনটিতে প্রিয়জনের কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত সেলামি পাওয়ার। সেটা এবার যেই অঙ্কেরই হোক না কেন। ঈদ স্পেশালের এবারের আয়োজন ছোটবেলায় তারকাদের ঈদে পাওয়া সর্বোচ্চ সেলামি। তারকারা নিজ মুখেই জানালেন সে কথা।

নোটটি পেয়ে অনেকক্ষণ তাকিয়ে ছিলাম: আমিন খান

তখন খুব বেশি হলে সেলামি পেতাম ১০ টাকা। আর সবচেয়ে কম পেতাম এক টাকা। অবশ্য আমাদের ছোটবেলায় এই টাকাটাই অনেক বেশি ছিল। তবে একবার ১শ’ টাকা পেয়েছিলাম। সম্ভবত তখন পঞ্চম অথবা ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়তাম। যিনি দিয়েছিলেন তিনি বাবার কলিগ ছিলেন। তার কাছ থেকে ১শ’ টাকার নোটটি পেয়ে অনেকক্ষণ তাকিয়ে ছিলাম। বিশ্বাস হতে অনেক কষ্ট হচ্ছিলো। কারণ তখন এতো টাকা কেউ দিতেন না। ওই ঈদেই আমি সর্বোচ্চ ১৩০টাকা সেলামি পাই। এখন আর সেলামি পাই না। সবাইকে দিতে হয়। প্রতি ঈদে কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা সেলামি দেওয়া লাগে।

এই ব্যাপারটাতে আমি কখনই বড় হবো না: শবনম বুবলী

ঈদে সেলামি পাওয়াটা ছিল অন্যরকম আনন্দের। এটা আমি এখন পর্যন্ত উপভোগ করি। ছোটবেলায় পেতাম, এখনও পাই। এই ব্যাপারটাতে আমি কখনই বড় হবো না। আমার দুই দুলাভাই সবসময় আমাকে আর আমার ছোট ভাইকে বলে রাখতেন, ঈদের দিন সকালে যে আমাদের আগে সালাম করবে তাকেই সেলামি দেবো। তাই ঈদের দিন সকালে রেডি হয়ে আমরা দু’জন গেটে বসে থাকতাম। যাতে দুলাভাইরা এলেই আগে সালাম করতে পারি। ছোটবেলায় এক ঈদে সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা পেয়েছিলাম। যতদূর মনে পড়ে টাকাটা দিয়ে বই কিনেছিলাম।

অনেক আফসোস করেছিলাম: সাইমন সাদিক

ঈদের দিন ঘুরে ঘুরে সেলামি সংগ্রহ করতাম। ছোটবেলায় আশা থাকতো একজনের কাছেই ১শ’-২শ’ টাকা পাবো। কিন্তু পেতাম মাত্র পাঁচ টাকা। আসলে তখন এই টাকাটাই আমাদের