দিল্লিকে হারিয়ে আবারও শীর্ষে সাকিবদের হায়দরাবাদ













১৬৪ রানের লক্ষ্যটাও এক সময় অনেক বড় মনে হচ্ছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের সামনে। শেষ ওভারে যখন ১৪ রান প্রয়োজন ছিল হায়দরাবাদের, তখন দিল্লির বোলার অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার ড্যানিয়েল ক্রিশ্চিয়ান। এমন পরিস্থিতিতে অনেক ভালো ভালো বোলিং করার অভিজ্ঞতা রয়েছে তার।

এ পরিস্থিতিতে হায়দরাবাদের ব্যাটিংয়ে দুই পরীক্ষিত সৈনিক। এক পাশে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন আর অন্য পাশে ইউসুফ পাঠান। সুতরাং, হায়দরাবাদও আশাবাদী কম নয়। স্ট্রাইকিং প্রান্তে ইউসুফ পাঠান। প্রথম বল থেকে নিলেন দুই রান। বরং রানআউট হওয়া জোগাড় হয়েছিল উইলিয়ামসনের। ভাগ্য ভালো সরাসরি থ্রুতে স্ট্যাম্প ভাঙলেও তার আগেই ক্রিজ স্পর্শ করে ফেলেছিল তার ব্যাট।

পরের বলটিই ফুল টস দিয়ে দিলেন ক্রিশ্চিয়ান। কব্জির মোচড়ে বলকে আকাশে তুলে দিলেন ইউসুফ পাঠান। সোজা গ্যালারিতে। পরের বল দিলেন বাউন্সার। তাতেও রক্ষা হলো না। পুল করলেন ইউসুফ। বল শর্ট ফাইন লেগ দিয়ে চলে গেলো বাউন্ডারির বাইরে। পরের তিন বলে দরকার ২ রান। সিঙ্গেল করে নিয়ে ১ বল হাতে থাকতেই জয়ের বন্দরে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

১৬৪ রান তাড়া করতে নেমে ৭ উইকেটের বিশাল জয় তুলে নিলো সাকিব আল হাসানের দল। দিল্লি ডেয়ারডেভিলসকে হারিয়ে আইপিএলের এবারের আসরে আবারও শীর্ষে উঠে এলো হায়দরাবাদ। চার ঘণ্টা আগে ব্যাঙ্গালুরুকে হারিয়ে শীর্ষে এসেছিল চেন্নাই সুপার কিংস। চার ঘণ্টা পর তাদের হটিয়ে আবারও শীর্ষে উঠলো হায়দরাবাদ।

১৬৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আলেক্স হেলস আর শিখর ধাওয়ান মিলে ধীরে সুস্থে একটা ভালো জুটি গড়ে দিয়ে যান। ৯ ওভার ব্যাট করে তাদের জুটি ছিল ৭৬ রানের। ৩০ বলে ৩৩ রান করে আউট হন ধাওয়ান। ৩১ বলে ৩টি করে বাউন্ডারি আর ছক্কায় ৪৫ রান করেন হেলস।

১৭ বলে মনিশ পান্ডে ২১ রান করে আউট হয়ে গেলেও ৩০ বলে ৩২ রান করে উইলিয়ামসন আর ১২ বলে ২৭ রানের ঝড় তুলে অপরাজিত ছিলেন ইউসুফ পাঠান। দিল্লির হয়ে অমিত মিশ্র ২টি এবং লিয়াম প্লাঙ্কেট নেন ১টি উইকেট।

এই জয়ের ফলে ৯ ম্যাচ শেষে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের পয়েণ্ট দাঁড়িয়েছে ১৪। ১ ম্যাচ বেশি খেলে চেন্নাই সুপার কিংসের পয়েণ্টও ১৪। ১০ পয়েণ্ট করে নিয়ে কেকেআর আর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব রয়েছে পরের দুই স্থানে।