ব্যাঙ্গালুরুকে হারিয়ে আবারও শীর্ষে চেন্নাই













আইপিএলে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান নিয়ে চলছে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা। কখনো সানরাইজার্স হায়দরাবাদ, তো কখনো চেন্নাই সুপার কিংস। আবার কখনো কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব উঠে আসছে শীর্ষে। এবার ঘরের মাঠে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুকে ৬ উইকেটে হারিয়ে পুনরায় পয়েন্ট টেবিলের ১ নম্বর স্থান দখল করেছে চেন্নাই।

ব্যাঙ্গালুরুর করা ১২৭ রানের জবাবে ২ ওভার এবং ৬ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় চেন্নাই। ১ চার এবং ৩ ছক্কার মারে ২৩ বলে ৩১ রান করে অপরাজিত থাকেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। ১ ছক্কার মারে ১৭ বলে ১৪ রান করা ডোয়াইন ব্রাভোর ব্যাট থেকে আসে জয়সূচক রান।

রান তাড়া করতে নেমে চেন্নাইকে যথাযথ সূচনা এনে দেন টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক আম্বাতি রাইডু। ৩ চার এবং ২ ছক্কার মারে ৩২ রান করেন তিনি। এছাড়া শেন ওয়াটসন ১১ এবং সুরেশ রায়না করেন ৮ রান। ব্যাঙ্গালুরুর পক্ষে উমেশ যাদব নেন দুই উইকেট। এছাড়া কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম ও মুরুগান অশ্বিন নেন একটি করে উইকেট।

এর আগে ঘরের মাঠে টসে জিতে ব্যাঙ্গালুরুকে আগে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান চেন্নাই সুপার কিংস অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে ব্যাঙ্গালুরু। উপরের সারির ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেন পার্থিব একাই। কোহলি ৮, ম্যাককালাম ৫ এবং ডি ভিলিয়ার্স করেন ১ রান।

ক্যারিয়ারের ২১তম টি-টোয়েন্টি ফিফটিতে ৫৩ রান করেন পার্থিব। ৫ চার এবং ২ ছক্কার মারে সাজানো ইনিংসে ৪১টি বল খেলেন তিনি। শেষদিকে ব্যাট হাতে আইপিএল ক্যারিয়ারে নিজের সেরা ইনিংস খেলেন সাউদি। তার ঝড়ো ব্যাটিংয়েই মূলত ১০০ ছাড়ায় ব্যাঙ্গালুরুর ইনিংস। ২ চার এবং ১ ছয়ের মারে ২৬ বলে ৩৬ রান করে অপরাজিত থাকেন সাউদি।

চেন্নাইয়ের পক্ষে ৪ ওভার বল করে মাত্র ১৮ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন রবিন্দ্র জাদেজা। এছাড়া হরভজন সিং ২টি ও লুঙ্গি এনগিডি এবং ডেভিড উইলি ১টি করে উইকেট নেন। এই জয়ে ১০ ম্যাচে ৭ জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেছে চেন্নাই। তবে রাতের ম্যাচে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসকে চেন্নাইয়ের জায়গা দখল করবে সাকিব আল হাসানের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।